পত্র পত্রিকা ও ইউটিউবে এসেছে যে, নিহত রিফাত শরীফের হত্যাকারী বন্দুকযুদ্ধে নিহত নয়ন বন্ডের মায়ের সিম ব্যবহার করে মিন্নি বহুবার নয়নের সাথে কথা বলেছে, ও রিফাত শরিফকে হত্যার পরে নয়ন তাঁর মায়ের ঐ সিমে শেষ এস এম এস এর মাধ্যমে  জানায় যে, “আমাকে আমার বাবাই জন্ম দিছে”।  আর এই এস এম এস এর সূত্র ধরে একদল প্রমাণ করার চেষ্টা করছে যে, মিন্নি নাকি নয়নকে বলেছিল যে, তুমি যদি আমার স্বামী রিফাতকে হত্যা করতে পারো, তাহলে জানবো যে, তোমারে তোমার বাপেই জন্ম দিছে। আর সে জন্যই নয়ন রিফাত শরীফকে হত্যার পরে মিন্নিকে ঐ এস এম এস করে। 

উক্ত ধারণার প্রেক্ষিতে গুরুজি সেরু পাগলা বলেন যে, ঐ এস এম এস এর কারণে তারা যেমন রিফাত হত্যায় মিন্নি জড়িত সন্দেহ করছে, তেমনি ভাবে আমরা ও তো সন্দেহ করতে পারি যে বন্দুক যুদ্ধে নিহত নয়ন বন্ডের মায়ের ঐ সিম মিন্নি নয় অন্য কেউ ব্যবহার করে নয়নের সাথে কথা আদান প্রদান করেছে। তাই এই মুহূর্তে তদন্ত করা প্রয়োজন যে-

প্রথমত নয়নের মায়ের সিম ও নয়নের মোবাইল কোন লোকেশন থেকে কথা ও এস এম এস আদান প্রদান হয়েছে তা তদন্ত করে বের করতে হবে। দ্বিতীয়ত নয়নের শেষ এস এম এস এর কারণ এমন হতে পারে যে, নয়ন কোন এক সময় মিন্নিকে হুমকি দিয়েছিল যে, আমি তোর সামনেই তোর স্বামিকে মেরে ফেলবো। তখন হয়তো মিন্নি প্রতিবাদ করে বলেছিল যে, তুই আমার স্বামীকে মারতে আসিস আমিও দেখে নেবো যে, তোরে কোন বাপে জন্ম দিছে। আর সে জন্যই রিফাতকে হত্যা করার পরে নয়ন এস এম এস করে মিন্নিকে জানিয়েছে যে, আমাকে আমার বাবাই জন্ম দিছে।
আবার এমন ও হতে পারে যে, নয়নের মায়ের মোবাইল সিম দিয়ে যে মহিলা নয়নের সাথে কথা বলেছে, সে মিন্নি নয় রিফাত শরীফের পূর্বের প্রেমিকা। রিফাত শরীফ মিন্নিকে বিয়ে করার পরে ঐ মহিলা রিফাতের উপর প্রতিশোধ নিতে নয়নের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করে এবং নয়ন সেই মেয়েকে ব্যবহারের জন্য তাঁর মায়ের সিম দেয়। আর রিফাতের ঐ প্রেমিকা নয়নকে উদ্বুদ্ধ করে যে সে যেন রিফাতকে হত্যা করে। আর নয়ন হয়তো তাকে কথা দেয় যে অবশ্যই সে রিফাত শরীফকে হত্যা করবে। আর সেই মহিলা হয়তো বলে যে, তুমি যদি রিফাতকে হত্যা করতে পারো তাহলে বুঝবো, তুমি বাপেরই ব্যাটা। বা তাহলে বুঝবো যে তোমারে তোমার বাবাই জন্ম দিছে। আর সে জন্যই নয়ন রিফাতকে হত্যার পরে সেই মেয়েকে এস এম এস করেছে যে, আমাকে আমার বাবাই জন্ম দিছে। আবার এমনও হতে পারে যে ঐ মহিলা রিফাত ফরাজির খালা খুকি।
তবে নয়নের মায়ের সিম ব্যবহার করে নয়নের সাথে কে কথা ও এসএমএস আদান প্রদান করেছে তা জানার জন্য প্রথম প্রয়োজন, নয়নের মায়ের সিমটি কোন মোবাইল সেটে সংযুক্ত ছিল সেই মোবাইল সেটের আইএমইআই নম্বর কত। ঐ আইএমইআই নম্বরের মোবাইল সেটটিতে আর কোন কোন সিম সংযুক্ত করে কথা বলা হয়েছে। সে সকল সিম কার কার নামে নিবন্ধন করা এবং কোন কোন লোকেশন থেকে কল আদান প্রদান করা হয়েছে ও কোন কোন সিম দ্বারা কার কার সাথে কি কি কথা বলা হয়েছে।
আশা করি তাহলেই রিফাত শরীফ হত্যার অনেক সত্য উম্মোচিত হবে।

(20)

0 Comments

Leave a Reply