এবার গুরুজি সিরাজুল ইসলাম ওরফে সেরু পাগলা বলেছেন যে,
 
 
নইলে খুনীরা কেন মিন্নিকে কোপালো না প্রশ্নে গুরুজি বলেন যে, অনেক পত্রিকায় এসেছে রিফাত শরীফকে হত্যার হামলায় রিফাত ফরাজির রামদা এর কোপে রিশান ফরাজিও আহত হয়েছে। তাহলে কি আমরা ধরে নিব যে- রিশান ফরাজি হত্যাকারীদলের ছিল না। সে ছিল রিফাত শরীফ কে রক্ষাকারী দলের পক্ষে।
আর রিফাত শরীফ হত্যা হামলায় মিন্নির আহত না হওয়া যদি, মিন্নির রিফাত শরীফ হত্যার সম্পৃক্ততা বোঝায়, তাহলে গ্রেনেড হামলায় জননেত্রি শেখ হাসিনার নিহত বা আহত না হওয়াকে কি ঐ হামলাতে জননেত্রি শেখ হাসিনার সম্পৃক্ততা ধরে নিতে হবে?
 
এখানেও তো প্রশ্ন আসতে পারে যে, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার মাস্টারমাইন্ড আওয়ামীলীগ। তাদের পূর্ব পরিকল্পনা অনুসারেই যে সকল গ্রেনেড বিস্ফোরিত হয়ে নেতা কর্মীরা আহত নিহত হয়েছে সে গ্রেনেডগুলি তাজা ছিল। আর শেখ হাসিনার অবস্থান স্থলে যে গ্রেনেডটি অবিস্ফোরিত ছিলো সে গ্রেনেডটি মাস্টারমাইন্ডরা বুঝে শুনেই ড্যামেজ গ্রেনেড ছুড়েছিল? তখন তারা কি জবাব দেবে?
 
আসলে হামলার স্থলে কে আহত হবে ও কে নিহত হবে এবং কে অক্ষত থাকবে এর সবটাই পরম করুণাময় আল্লাহর ইচ্ছা। আর সে ইচ্ছাতেই জননেত্রি শেখ হাসিনা ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় রক্ষা পেয়েছেন। ঠিক তেমনি মিন্নিও একই জনের ইচ্ছাতেই রিফাত শরীফ হত্যার হামলা হতে অক্ষত রয়েছেন। আবার এমনও হতে পারে যে, গ্রেনেড হামলায় জননেত্রি শেখ হাসিনাকে অক্ষত রেখে আল্লাহ জননেত্রি শেখ হাসিনার মাধ্যমে হামলাকারীদের বিচার ও শাস্তি সম্পন্ন ও হামলাকারী দলকে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছেন। আর সে জন্যই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারী দলের আজ এই করুন অবস্থা। ঠিক তেমনি রিফাত শরীফ হত্যার হামলা হতে মিন্নিকে অক্ষত রেখে আল্লাহ বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যার প্রত্যক্ষ ও পরক্ষ সকল হত্যাকারীর বিচার নিশ্চিত ও তাদেরকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে চান।
 

(17)

0 Comments

Leave a Reply