আজ থেকে আনুমানিক আট হাজার বছর পূর্বে এই পৃথিবীতে জন্ম গ্রহন করেন আদম। তিনি দেখেন তাদের কষ্টের ফলানো ফসলের অর্ধেক দিয়ে দিতে হয় নমরুদ নামের এক যালিমকে। যদিও নমরুদ ও নমরুদের দলের লোকেরা ছিলে প্রচণ্ড অত্যাচারী। তারা শান্তিতে বসবাসকারী ইসলাম পন্থিদের যুবতি মেয়েদেরকে তুলে নিযে যেত। তাদেরকে ধর্ষণ করতো সেবা দাসী হিসাবে রেখে দিতো। আবার যখন সে সকল মেয়েরা গর্ভবতি হতো তখন তাদেরকে হয মেরে ফেলে তার পিতা মাতার কাছে লাশ পাঠিয়ে দিতো, নয় গর্ভাবস্থায় তাকে তার বাবা মায়ের কাছে পঠিয়ে দিতো। এসকল বিষয় আদম মেনে নিতে পারে না। তখন তিনি ইসলাম পন্থিদের নিয়ে নমরুদ ও তার দলের বিরুদ্ধে একটি দল গঠন করেন। তখন এই আদম প্রথম প্রচার করেন যে, সমস্ত সৃষ্টির মালিক আল্লাহ। এই আকাশ, এই বাতাস, এই সূর্য্য, চন্দ্র ও পৃথিবী সবই আল্লাহর সৃষ্টি। আমরা আল্লাহ ব্যতীত অন্য কাহাকেও এ সকল সৃষ্টির মালিক মানবো না। আমরা আর কাহাকেও আমাদের উতপাদিত পণ্যের অংশ দিব না।

যালিম নমরুদ তার দলবল নিয়ে ইসলাম পন্থিদের উপর আক্রমণ করলো। আদমের দলের কাছে তারা পরাজিত হলো। নমরুদের দলের অধিকাংশ লোক যখন আদমের দলের লোকের হাতে মৃত্যু বরণ করলো, তখন তারা পিছু হটতে বাধ্য হলো। তখন আদমের দলের লোকেরা খুজে খুজে নমরুদের দলের লোকদেরকে মারতে থাকলো এবং এক সময় নমরুদের দল বলে আর কিছুই থাকলো না। আবার পৃথিবীতে শুরু হলো ইসলামের যুগ সাম্যের যুগ । সম-অধিকারের যুগ। আবার তারা নিজেদের উতপাদিত সম্পদ নিজেরা ভোগ করতে লাগলো। আর কাউকেই তাদের সম্পদের ভাগদিতে হলো না। ততকালিন সময়ের আইন ছিল এলাকা ভিত্তিক জতজনে আবাদ করবে তারা সকলেই সমান ভাবে তা ভাগ করে নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করবে। কোন এলাকায় ফসল উতপাদিত না হলে সকল এলাকা থেকে সেই এলাকাকে একটি অংশ দিয়ে দিতে হবে। অর্থাত শিশু থেকে বৃদ্ধ কর্মঠ থেকে অ-কর্মঠ সকলেই সে সম্পদের সম-ভাগ পাবে। তবে প্রত্যেক কর্মক্ষম ব্যাক্তিকেই বাধ্যতা মূলক কর্ম করতে হবে।

এভাবেই আদম পরিবার এক নাগাড়ে ১১০০ বছর রাজত্ব করেন। মানুষ সুখে শান্তিতে বাস করছিল। ধিরে ধিরে জনসংখ্যা বাড়তে থাকে। নমরুদের দলের লোকেরা যারা জীবিত ছিল, তারা তখন আদমের রাজ্যে আদমের আইন মত চলতে বাধ্য হলো। নমরুদের দলের লোকেরা আদমের আইন মত চললেও তারা ইসলাম পন্থিদের মধ্য হতে হিংস্র ও লোভী লোক গুলিকে চিহ্নিত ও একত্রতি করতে লাগলো। তারা আদমের দলের হিংস্র ও লোভী লোক গুলিকে বুঝাতে লাগলো যে, এই সম-অধিকার আইন সঠিক নয। কেন না আমি বেশি উতপাদন করবো আমি ভালো থাকবো আরেক জন উতপাদন করতে পারবে না তাকে কেন আমরা ভাগ দিতে যাবো? আর আল্লাহ যদি সম অধিকারে বিশ্বাসী হয় বা সম-অধিকারী হয়, এবং এটা যদি আল্লাহর আইন হয়, তাহলে আল্লাহ সকলকে এক রকম করে সৃষ্টি করেন না কেন? কেন তিনি পঙ্গু, বিকলাঙ্গ, অন্ধ ও বোবা সৃষ্টি করেন। কেন তিনি সাদা ও কালো বর্ণের মানুষ সৃষ্টি করেন। কেন তিনি সবাইকে এক রকম সৃষ্টি করেন না? কেন সকল জমিতে এক রকম ফসল হয় না? কেন সকল ফলের স্বাদ এক রকম নয়?

আদমের কাছে সৃষ্টির এই বৈষম্যের কারণ জানতে চাইলে আদম এর কোন সুন্দর মিমাংসা দিতে পারলো না। তিনি বললেন এ সকল আল্লাহর সৃষ্টি। আল্লাহই অন্ধ, বোবা, ল্যংড়া, সাদা ও কালো সৃষ্টি করেন। তিনিই জানেন কোন জমিতে কি ফসল হবে এবং তিনিই নির্ধারণ করেন কোন ফলের কি স্বাদ হবে। তখন নমরুদের লোকেরা বললো, যদি আল্লাহই এই বৈষম্য ভাবে সৃষ্টি করেন। তাহলে তার আইন সম-অধিকার হয় কি ভাবে? তখন আদম তার জবাব দিতে পারলো না। তখন হিংস্র, লোভী ও শক্তিশালি লোকগুলি একত্রীত হলো নমরুদের দলের লোকের সাথে। নমরুদের লোকেরা বললো, আমরা যারা বেশি শক্তিশালি তারা বেশি পরিশ্রম করতে পারবো। বেশি উতপাদন করতে পারবো। আর যারা কম শক্তিশালি তারা কম উতপাদন করতে পারবে। তারা এবং আমরা সমান ভাবে চলতে পারি না।

এভাবে ধিরে ধিরে নমরুদের দলের লোকেরা আদমের দলের লোক হতে লোভী, হিংস্র ও শক্তিশালী লোকগুলি সংগঠিত করে আদমের আইনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলো। এবং তারা বললো আজ থেকে আমরা আর আদমের আইন মানবো না। আদম সম-অধিকার টিকিয়ে রাখার চেষ্টায় ব্যর্থ হলেন। প্রায় ১১০০ বছর সম-অধিকারে চলার পরে নমরুদের গড়া সেই দল, নমরুদের নাম বাদ দিয়ে, তখনকার তাদের দলের দলনেতা ফেরাউনের নামানুসারে, ফেরাউনের দলনামে আত্মপ্রকাশ করলো। এই ফেরাউনের দলের লোকের কাছে আদম পরিবার তথা ইসলামী দলটি পরাজয় বরণ করে। পৃথিবীতে আবার চালু হযে যায় ফেরাউনের নামে নমরুদের রাজত্ব। তারা আবার সকল মানুষের কাছ থেকে আবাদী ফসলের অর্ধেক ভাগ নিতে থাকে। আবার সকল মানুষ নির্যাতিত হতে থাকে এই ফেরাউনের দলের হাতে।

ফেরাউনের দল ক্ষমতা দখলের পরে আনুমানিক ৬০০ বছর পরে, নুহের পরিবারে শামের জন্ম হয়। বয়ঃপ্রাপ্ত হলে শাম আবার এই ফেরাউন দলের অন্যায়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেন এবং ইসলাম পন্থিদের সংঘবদ্ধ করতে শুরু করেন।


১। স্বার্থ সিদ্ধির জন্য নেওয়া ছলনাময়ী আশ্রয়টুকুর নামই, প্রেম বা ভালবাসা। সেরু পাগলার বাণী।

২। যাহার চিন্তা বাক্য ও কর্ম, নিজের, সমাজের, দেশের তথা বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষে নিযোজিত, সেই ইসলাম বা শান্তি ধর্মের লোক। তা সে যে সম্প্রদায়েরই হউক না কেন। আর- যাহার চিন্তা বাক্য ও কর্ম, নিজের, সমাজের, দেশের তথা বিশ্ব অ-শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষে নিযোজিত, সেই অ-ইসলাম বা অ-শান্তি ধর্মের লোক। তা সে যে সম্প্রদায়েরই হউক না কেন। সেরু পাগলার বাণী।

৩। আস্তিক হলো তারাই- যারা বিশ্বাস করে আল্লাহর অস্তিত্ব আছে। আল্লাহ দেহধারী, তাকে দেখা যায় ও তাকে ধরা যায়।
নাস্তিক হলো তারা- যারা মনে করে আল্লাহ নিরাকার, তাকে দেখা ও ধরা যায় না।
আর যারা বিশ্বাস করে স্রষ্টা বলতে কিছু নাই, তারা মূলতঃ ভণ্ড। সেরু পাগলার বাণী।।

(76) বার পঠিত

6 Responses

  • শুক্রধর

    আদম কত বছর বেঁচে ছিলেন? আর আদমের পিতা-মাতার নাম কী ছিল?

  • গুরুজি

    ১। আদম (আ)- ১০০০ বছর।
    ২। নূহ (আ)- ৯৫০ বছর।
    ৩। শুয়াইব (আ)- ৮৮২ বছর।
    ৪। সালেহ (আ)- ৫৮৬ বছর।
    ৫। যাকারিয়া (আ)- ২০৭ বছর।
    ৬। ইব্রাহিম (আ)- ১৯৫ বছর।
    ৭। সুলাইমান (আ)- ১৩৭ বছর।
    ৮। ইয়াকুব (আ)- ১২৯ বছর।
    ৯। মুসা (আ)- ১২৫ বছর।
    ১০। ইসহাক (আ)- ১৫০ বছর।
    ১১। হারুন (আ)- ১১৯ বছর।
    ১২। ইউসুফ (আ)- ১১০ বছর।
    ১৩। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা)- ৬৩ বছর।,

  • শুক্রধর

    গুরজী, আর একটা প্রশ্নের উত্তর পাইনি ꫰ তাহল, আদমের পিতা-মাতার নাম কী ?

    সেই সাথে, ঈসার কি পিতা ছিল, থাকলে তার নাম কী এবং তিনি কত দিন বেঁচে ছিলেন৷

    • গুরুজি

      কোরআন যে আদমের কথা বলেছে, সেটা একজাতে বা উপাদানে গঠিত দেহের কথা। আর সেই উপাদানটির নাম মাটি। প্রতিটি প্রাণীর দেহে মধ্যে থাকা মাটি দ্বারা তৈরি দেহটির নাম আদম। তাই কোরআন আদমের পিতা মাতা বিষয়ে আলোচনা করে নি। কেনো না প্রচলিত কোরআন উল্লিখিত মাটি দ্বারা তৈরি আদমের পিতামাতা নাই, সে প্রতিটি প্রাণী মধ্যেই অবস্থিত। আর আজ থেকে আনুমানিক আট হাজার বছর পূর্বে যে আদম পিতামাতার গর্ভে জন্ম গ্রহণ করেছিলো ও এক হাজার বছর বয়সে ইন্তেকাল করেছিলো, ও বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করেছিলো, তার পিতামাতার নামধাম কোন গ্রন্থেই উল্লেখ করা হয় নি। আট হাজার বছর পূর্বে জন্ম নেওয়া ও সাত হাজার বছর পূর্বে মৃত্যু বরণকারী আদমের পিতামাতার পরিচয় না থাকার জন্য যদি মনে করা হয় যে, আদম পিতামাতার মাধ্যমে জন্ম নয়, সেটা হবে অদূরদর্শিতার ফসল।

      মাত্র দু’শো বছর পূর্বে জন্ম নেওয়া লালন শাহ এরও পিতামাতার পরিচয় পাওয়া যায় না। তাহলে কি ধরে নিতে হবে যে, লালন পিতামাতা ছাড়াই পৃথিবীতে এসেছে।

      আর ঈসা নবীর পিতার নাম ইউসুফ। সে পিতা ছাড়া জন্ম গ্রহণ করে নি।

  • শুক্রধর

    জানার আগ্রহ থেকেই জানতে চাচ্ছি, ঈসা কত দিন বেঁচে ছিলেন?

  • গুরুজি

    ব্যক্তি ইসাকে ৩৩ বৎসর বয়সে অইসলাম পন্থিরা ক্রুশ বিদ্ধ করে হত্যা করে। আর বস্তু ঈসা এখনো জিন্দা ও বর্তমান।

Leave a Reply